শনিবার, ৩১ Jul ২০২১, ০৬:৫০ অপরাহ্ন

ঈদের কেনাকাটায় বাজারে উপচে পড়া ভীড়, স্বাস্থ্যবিধি মানছে না কেউ

ঈদের কেনাকাটায় বাজারে উপচে পড়া ভীড়, স্বাস্থ্যবিধি মানছে না কেউ

এনপিনিউজ৭১/শাহজাহান আলী মনন/ ১৭ মে

নীলফামারী জেলা শহরের বিপণী বিতান গুলোতে পণ্য কেনা বেচার সময় সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্য বিধি মানছে না কেউ। ব্যবসীয়দের হ্যান্ড সেনিটাইজার ও হাত ধোয়ার ব্যবস্থা করা কথা থাকলেও সে ব্যাপারে নেই কোন পদক্ষেপ।
সরেজমিনে রোববার (১৭ মে) দুপুরে শহরের বিভিন্ন বাজার (মার্কেট) ঘুরে দেখা যায়, দোকান গুলোয় রয়েছে ক্রেতাদের উপচে পড়া ভীড়। স্বাস্থ্য বিধি মেনে দোকানের সামনে টাঙ্গানোর কথা ছিল, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখুন, এই সতর্কতাবানী। তবে তা মানছে না ব্যবসায়ীরা। মালিক ও কর্মচারীদের মুখেও নেই মাস্ক, হাতে নেই গ্লোভস। নিয়ম নীতির (স্বাস্থ বিধি) তোয়াক্কা করছে না কেউ।
নীলফামারী বড় বাজারের কাপড় ব্যবসায়ী ও লিয়ন ক্লোথ স্টোরের মালিক বেলাল হোসেন জানান, মাস্ক পড়ে কথা বললে গ্রাহকরা কথা শুনতে পায় না। তাই তিনি মাস্ক পড়েননি। লোক দেখানো বোতলে জীবাণু মুক্ত পানী রেখেছে, তবে সেই পানীর নেই কোন ব্যবহার। জিজ্ঞেস করলে বলেন, খরিদদার চলে গেলে পানি ছিটানো হবে।
ঈদের কেনাকাটায় প্রচুর মানুষের আনাগোনা লক্ষ্য করা গেছে ওই বাজারে। বিশেষ করে জুতা, স্যান্টেল ও কাপড়ের দোকানে নারী পুরুষের ছিল উপচে পড়া ভীড়। মাস্ক বিহীন শিশুরাও রয়েছে গার্ডিয়ানদের সাথে। গাদাগাদি করে পছন্দের পণ্য কিনছেন তারা। সরকারী নিয়ম অমান্য করে দোকানের মালিক কর্মচারীরা অনায়শে ব্যবসা করে যাচ্ছে। এ ছাড়াও সকাল ১০টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত দোকান খোলা রাখার কথা থাকলেও অনেকেই মানছে না সেই নিয়ম।

বড় বাজারের কাপড় ব্যবসায়ী ও স্বৃতি গার্মেন্টসের মালিক মকবুল হোসেন জানান, করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে ও স্বাস্থ্য বিধি মেনে সব ব্যবস্থা করে রেখেছি। কিন্ত ক্রেতারা এসব নিয়ম মানছে না। আবার তাদের কিছু বললে ক্ষুব্ধ হয়ে দোকান ছেড়ে চলেও যায়। বেচা কেনার সার্থে ক্রেতাদের বেশী কিছু বলতেও পারছি না।
একই বাজারের ফাতেমা গার্মেন্টস এন্ড ক্লোথ স্টোরের সামনে কথা হয় কুন্দুপুকুর ইউনিয়নের মধ্য শালহাটি গ্রামের হোটেল ব্যবসায়ী গোলাম রব্বানীর সাথে তিনি জানান, সরকার করোনা প্রতিরোধে যেসব পদক্ষেপ নিয়েছে ব্যবসায়ীরা তা মানছে না। দোকানের সামনে সতর্কতা মূলক নেই পোস্টার, নেই জীবাণু মুক্ত পানির বোতল। এ ছাড়াও সামাজিক দূরত্বের নেই কোন প্রচারনা। এতে লোকজন বাজারে সংক্রমিত হয়ে বাড়ীসহ পাড়া মহল্লায় করোনা সংক্রমন ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে।

জেলা সদরের রামনগর ইউনিয়নের চড়চড়াবাড়ী গ্রামের লুৎফর রহমান (৫০) পরিবারের ছেলে মেয়ের জন্য কাপড় কেনতে এসে জানান, ভাবতে পারিনি দোকানে করোনা পরিস্থিতে এতো লোকের ভীড় হবে। অনেক চেষ্টা করে ফাঁকা জায়গায় দাঁড়িয়ে দুইটি জামা কিনলাম। আরো কিছু কেনার বাকি রইল। করোনা ভাইরাসের কথা ভেবে বাড়ী চলে যাচ্ছি। চোখে যেটা দেখলাম সামাজিক দূরত্ব মানছে না কেউ। অনেকের মুখে মাস্কও নেই। স্থানীয় প্রশাসনের নজরদারী বাড়ানোর প্রয়োজন বলে মনে করেন তিনি।
সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোছা. এলিনা আকতার মুঠোফোনে জানান, স্বাস্থ্য বিধি মেনে ব্যবসায়ীদের কেনাবেচা করা নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে ক্রেতা বিক্রেতা উভয় গ্লোভস ও মাস্ক পরিধান করে প্রয়োজনীয় কেনাকাটা করতে পারবেন। তিনি জানান, সকাল ১০ টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত এই কেনাকাটা চলবে। তবে অনিয়মের অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

এনপি৭১


© All rights reserved © 2020-21 npnews71.com
Developed BY Akm Sumon Miah