Just IN :

পীরগঞ্জে জমির বিরোধে এক কৃষককে কুপিয়ে গুরুতর জখম: থানায় মামলা

পীরগঞ্জে জমির বিরোধে এক কৃষককে  কুপিয়ে গুরুতর জখম: থানায় মামলা

পীরগঞ্জে জমির বিরোধে এক কৃষককে কুপিয়ে গুরুতর জখম: থানায় মামলা

নিজস্ব প্রতিবেদক

পীরগঞ্জে জয়পুর গ্রামে জহের আলী নামের এক কৃষককে জমি জমা বিরোধের জের ধরে কুপিয়ে গুরুতর জখম করেছে প্রতিপক্ষ মোতাবেরুল ও তার সহযোগিরা। এদিকে জহের আলী ও মোতাবেরুল উভয়ে বাদী হয়ে পীরগঞ্জ থানায় পৃথক দুটি মামলা দায়ের করে। ঘটানাটি ঘটেছে গত ২৬ অক্টোম্বর সকাল ৯ টায় উপজেলার জয়পুর গ্রামে।

মামলার সূত্রে জানাগেছে রংপুরের পীরগঞ্জ উপজেলার কাবিলপুর ইউনিয়নের জয়পুর গ্রামের মৃত্যু মোফাজ্জল হোসেনের পুত্র জহের আলী পৈত্রিক সূত্রে ৫২৫ দাগে ২০ শতক ও ক্রয় মূলে ৫২৬ দাগে ২২ শতক জমি দীর্ঘ দিন থেকে ভোগ দখল করে আসছিল। ওই জমিকে কেন্দ্র করে জয়পুর গ্রামের মোতাবেরুল ও তার সহযোগিদের সাথে মামলা চলে আসছিল। এক পর্যায়ে জহের আলী আদালত থেকে মামলা রায় পেলে প্রতিপক্ষ মোতাবেরুল ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে। গত ২৬ অক্টোম্বর সকাল ৯ টায় মোতাবেরুল ও তার সহযোগি জহুরুল ইসলাম (৩৫) মোস্তাফিজার রহমান (৪৫),ওপিছার রহমান (৪০) ,জাহাঙ্গীর রহমান (৩৫) রহিমা বেগম, মিজানুর রহমান,(২২), হাসান (২০),এরশাদুর নবী (৩৫), জোবেদা বেগম, নারগিছ বেগম (২৩),তানিয়া বেগম (২২) রাজু মিয়াসহ (২০) আরো ৫/৬ জন জহের আলীর কলা বিক্রি করে বাড়িতে ফেরার পথে তার উপর অর্তিকিত হামলা চালায়।

জহের আলী বলেন, জহুরুলের হুকুমে প্রতিপক্ষগন দাঁ, কুড়াল, ধারোলে ছোরা, লোহার রড, লাঠি-সোডা, গাছের ডাল নিয়ে অর্তকিত ভাবে বে-আইনী জনতায় দলবদ্ধ হয়ে আমার জমিতে অনধিকার প্রবেশ করে। বাঁশ কাটতে থাকে এবং জোর পূর্বক আমার জায়গা ইট দিয়ে সিমানা প্র্রাচীর নির্মাণ করতে থাকে। আমি এসে বাধা নিষেধ করিলে মোস্তাফিজার রহমান ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে এবং বলে, আমরা তোকে খুজছি, বলে শালাকে ধর মেরে ফেল। তখন জহুরুলের হাতে থাকা লোহার রড দিয়ে আমার বাম কাদে ডাং মারে এতে আমার বাম কাঁদের হাড় ভেঙ্গে থেতলে গিয়ে গুরুতর রক্তার্ত জখম হয়। এ সময় মোস্তাফিজুর রহমানের হাতে থাকা লাঠি দিয়ে আমার শরীরের বিভিন্ন অংশে এলোপাতারী মার ডাং মেরে গুরুতর রক্তার্ত জখম করে। তখন ওপিছার রহমান তার হাতে থাকা ধারালো ছোরা দ্বারা হত্যার উদ্দেশে আমাকে মাথার পিছনে চোট মারে এতে আমার মাথার খুলি কেটে গিয়ে ২ ইঞ্চি ডিপ হয় রক্ত মাটিতে গড়ে পড়তে থাকে।

এ সময় আমার কলা বিক্রির এক লক্ষ টাকা মোতাবেরুলের স্ত্রী তানিয়া বেগম ছিনিয়ে নেয়। পরে আমার অবস্থা গুরুতর হওয়ায় আমাকে প্রথমে পীরগঞ্জ হাসপাতালে ভর্তি করে পরে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ৭দিন চিকিৎসা গ্রহন করি। এ ঘটনায় আমি পীরগঞ্জ থানায় একটি মামলা দিয়েছি (যার নং ৫২৫ তাং ২-১১-১৯ইং)। মোতাবেরুল ইসলামের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, আমাদের সাথে জরি নিয়ে বিরোধেই সেদিন মারামারি হয়েছে। মামলার তদন্তকারী দারোগা জুয়েল মিয়া বলেন, মামলাটি তদন্ত করছি। তদন্ত শেষে বলতে পারবো কে আসল আপরাধী। পীরগঞ্জ থানার ওসি সুরেস চন্দ্র বলেন, উভয় পক্ষের মধ্যে জমি নিয়ে দীর্ঘদিন থেকে বিরোধ চলে আসছিল। উভয় পক্ষে ইনজুরি দেখে মামলা নিয়েছি।

Related Posts