মঙ্গলবার, ০৩ অগাস্ট ২০২১, ০৬:২৩ পূর্বাহ্ন

রংপুরে গৃহবধূর মৃত্যু ঘিরে রহস্য

রংপুরে গৃহবধূর মৃত্যু ঘিরে রহস্য

রংপুরে রাবেয়া খাতুন (৩৫) নামে  তিন সন্তানের জননী এক গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। সোমবার বেলা ৩টার দিকে নগরীর গনেশপুর শান্তিপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত রায়েবা ওই এলাকার বাসের সুপারভাইজার সিরাজুল ইসলামের স্ত্রী এবং দুই ছেলে ও এক মেয়ের জননী।
স্বজন ও স্থানীয়রা রাবেয়াকে পিটিয়ে হত্যার দাবি করলেও পুলিশ বলছে তিনি আত্মহত্যা করেছেন।
নিহত রাবেয়ার ছোটভাই আযম আলী অভিযোগ করে বলেন, সিরাজুল ইসলাম মাদকসেবন করে তার বোন  রাবেয়াকে প্রায়ই মারধর করতেন। সোমবার তাকে  বেধড়ক মারধরের পর শাসরোধে হত্যা করে আত্মহত্যার প্রচারণা চালানো হচ্ছে।
রাবেয়ার একমাত্র মেয়ে  জানায়, শনিবার তার মা-বাবার মধ্যে ঝগড়া হয়। এ সময় তার বাবা পেটে লাথি মারলে মা রাবেয়া প্রচন্ড আঘাত পান। সেই থেকে তিনি ব্যাথায় ভুগছিলেন। সোমবার স্কুল থেকে বাড়ি ফিরে সে মায়ের মরদেহ দেখতে পায়।
স্থানীয় একাধিক প্রত্যক্ষদর্শী জানায়, সিরাজুল রংপুর-বগুড়াগামী বাসের সুপারভাইজার হিসেবে কাজ করেন। পারিবারিক বিষয় নিয়ে সিরাজুল তার স্ত্রী রাবেয়াকে প্রায়ই মারধর করতেন। সোমবার সকালেও তাদের মধ্যে ঝগড়া হয়। খবর পেয়ে তারা ওই বাড়িতে গিয়ে মরদেহ মাটিতে শোয়ানো অবস্থায় দেখতে পান। রাবেয়াকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে বলেও তারা দাবি করেন।
সিরাজুল ইসলাম জানান, তিনি ঘুমিয়ে ছিলেন। ঘুম থেকে উঠে তার স্ত্রীর ঝুলন্ত মরদেহ দেখতে পান। পরে দুই ছেলে তার মায়ের মরদেহ নিচে নামিয়ে আনে।
ঘটনাস্থল থেকে সন্ধ্যা সোয়া ৬টায় রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের কোতোয়ালি থানার এসআই ছকিদুল ইসলাম মুঠোফোনে বলেন, রাবেয়া আত্মহত্যা করেছেন। এরপর ব্যস্ত আছি, পরে কথা বলবো বলে লাইন কেটে দেন।
বিষয়টি নিয়ে সন্ধ্যা ৭টায় ওই পুলিশ কর্মকর্তার মুঠোফোনে কল দিলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি।


© All rights reserved © 2020-21 npnews71.com
Developed BY Akm Sumon Miah