বুধবার, ২৮ Jul ২০২১, ০২:৩৫ অপরাহ্ন

সৈয়দপুরে ছেলে কে মারপিটের বিচার চাওয়ায় বৃদ্ধাকে পিটিয়ে আহত করার অভিযোগ

সৈয়দপুরে ছেলে কে মারপিটের বিচার চাওয়ায় বৃদ্ধাকে পিটিয়ে আহত করার অভিযোগ

এনপিনিউজ৭১/শাহজাহান আলী মনন/ ২৭ এপ্রিল রংপুর

নীলফামারীর সৈয়দপুরে ছেলে কে মারপিটের বিচার চাওয়ায় এক বৃদ্ধাকে বেধড়ক পিটিয়ে গুরুত্বরভাবে আহত করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনাটি ঘটেছে শহরের সৈয়দপুর হাইস্কুলের মাঠের পূর্বপাশে অফিসার্স কলোনী ফুলবাগান এলাকায় গত ২৬ এপ্রিল রবিবার সন্ধায়। এ ঘটনায় থানায় ও উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগী বৃদ্ধা মোছাঃ রোজি বেগম।
অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, পুরাতন বাবুপাড়ার মোঃ নাদিম ও মোছাঃ রোজি দম্পতির ছেলে মোঃ নাইম রাজ (১৭) সন্ধায় মাগরিবের নামাজ পড়ে জামে মসজিদ থেকে বাড়ি ফেরার পথে অফিসার্স কলোনী ফুলবাগান এলাকার গোলাম ড্রাইভারের ছেলে বাদশা (২৩) অহেতুক গালিগালাজ করতঃ ধাক্কা মেরে ড্রেণে ফেলে দেয়। এতে নাইম রাজ হাতে পায়ে জখম হয়ে বাড়ি ফিরে তার মায়ের কাছে ঘটনাটি খুলে বলে। তখন মা রোজি বেগম ছেলে নাইম রাজ কে সাথে নিয়ে বাদশার বাড়িতে গিয়ে তার বাবা গোলাম ড্রাইভারকে বিষয়টি অবগত করে এর বিচার দাবি করেন।
এতে গোলাম ড্রাইভারের স্ত্রী অতর্কিতভাবে রোজি বেগমের উপর চড়াও হয় এবং বেধড়ক মারপিট করে জখম করে। ইতোমধ্যে গোলাম ড্রাইভারের ছেলেদ্বয় বাদশা ও সুন (২৮) ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে রোজি বেগমের সামনেই তার ছেলে নাইম রাজকে ধরে মারতে থাকে। এতে বাধা দিতে গেলে তারা সবাই মিলে মা ও ছেলেকে ঘিরে ধরে এলোপাথারীভাবে মার ডাং করে। এসময় প্রতিপক্ষের লাঠির আঘাাতে রোজি বেগমের হাত কেটে যায়।
খবর পেয়ে রোজি বেগমের জামাতা শহরের বাবুপাড়ার মৃত. হারুন অর রশিদের ছেলে নয়ন আসামাত্র তার উপরও চড়াও হয় গোলাম ড্রাইভারের পরিবারের লোকজন। পরে তাদের চিৎকারে আশেপাশের লোকজন ছুটে আসলে সনু এ ঘটনাকে নিয়ে বাড়াবাড়ি করা হলে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দেয় এবং এলাকা থেকে রোজি বেগম, নাইম ও নয়নকে এক প্রকার তাড়িয়ে দেয়। পরে আহতাবস্থায় রোজি বেগমকে সৈয়দপুর ১০০ শয্যা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে সৈয়দপুর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন রোজি বেগম।
এ ব্যাপারে রোজি বেগম বলেন, গোলাম ড্রাইভারের ছেলে বাদশা ও সনু এলাকায় দুর্দান্ত প্রকৃতির উচ্ছৃঙ্খল যুবক হিসেবে পরিচিত। তারা প্রায়ই মার ডাং ঘটনা ঘটিয়ে থাকে। সনু শহরের পাঁচমাথা মোড় এলাকায় সৈয়দপুুরে প্রবেশকারী ও প্রস্থানকারী পিকআপসহ বিভিন্ন যানবাহন থেকে চাঁদা আদায় করে থাকে। এছাড়াও স্থানীয় ফল আড়তেও সে চাঁদবাজি ও তার সন্ত্রাসী আধিপত্য বিস্তার করে রেখেছে। প্রায়ই সে ফল আড়তে অবস্থানরত বখাটেদের দিয়ে হাঙ্গামা সৃষ্টি করে ত্রাসের রাজত্ব কায়েক করেছে। তার চাঁদাবাজি ও সন্ত্রাসী কর্মকান্ডে ফল আড়তের ব্যবসায়ীরাসহ এলাকার সাধারণ মানুষ চরম সন্ত্রস্ত অবস্থায় দিনাতিপাত করছে।
বাদশা ও সনুর এহেন কর্মকান্ডের কারণে সকলেই তাদের এড়িয়ে চলে। কিন্তু তারা প্রায়ই এলাকার লোকজনের সাথে পায়ে পাড়া দিয়ে ঝগড়া বিবাদ সৃষ্টি করে। শিশু কিশোরদের অহেতুক উত্যক্ত করে তাদের মারপিট করাসহ নানাভাবে হয়রানী ও নাজেহাল করে। আমার ছেলে নাইম রাজের সাথেও বাদশা ্একইভাবে গালিগালাজ করে বিবাদ বাধিয়ে তাকে মারপিট করেছে এবং ড্রেনে ফেলে দিয়ে। প্রতিবাদ করে বিচার চাওয়ায় তারা পুরো পরিবার মিলে আমাকে ও আমার ছেলেকে আবারও মারধর করেছে এবং উল্টো আমাদেরকেই এটা নিয়ে বাড়াবাড়ি না করতে হুমকি দিয়েছে। একারণে আমরা জীবনের নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি।
এ ব্যাপারে সনুর সাথে কথা হলে সে জানায়, অভিযোগটি সত্য নয়। বরং রোজি বেগমই তার ছেলে কে নিয়ে এসে আমাদের বাড়িতে প্রায় ৩০ জন লোক নিয়ে এসে হামলা করেছে। এতে বাধা দেয়ায় আবার বাবার গেঞ্জি টেনে হিচড়ে ছিড়ে ফেলেছে। এটা নিয়ে থানায় বা সাংবাদিকদের অভিযোগ দেয়ার কি আছে। যান যত ইচ্ছে হয় নিউজ করেন। দেখে নিবো কি করা যায়।

এনপি৭১/সৈয়দপুর (নীলফামারী)


© All rights reserved © 2020-21 npnews71.com
Developed BY Akm Sumon Miah