মঙ্গলবার, ১৫ Jun ২০২১, ১২:১৫ পূর্বাহ্ন

সৈয়দপুরে প্রতিহিংসার শিকার হয়ে পানিবন্দিত্ব থেকে পরিত্রাণের দাবীতে হরিজনদের মানববন্ধন

সৈয়দপুরে প্রতিহিংসার শিকার হয়ে পানিবন্দিত্ব থেকে পরিত্রাণের দাবীতে হরিজনদের মানববন্ধন

শাহজাহান আলী মনন/ নীলফামারী ১৬ জুন

নীলফামারীর সৈয়দপুরে প্রতিহিংসা বশতঃ বাড়ির ব্যবহৃত পয়ঃবর্জ নিষ্কাশনের নালা বন্ধ করে কৃত্রিমভাবে সৃষ্ট জলাবদ্ধতা থেকে পরিত্রাণের দাবীতে মানববন্ধন করেছে কয়েকটি হরিজন পরিবার। সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে ১৬ জুন মঙ্গলবার দুপুর ১২ টা থেকে ১টা পর্যন্ত সৈয়দপুর প্রেস ক্লাবের সামনে ওই মানববন্ধনে হরিজন সম্প্রদায়ের বেশ কয়েকটি পরিবারের সদস্যরা অংশগ্রহন করে।
এতে বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশ ওয়ার্কাস পার্টির সৈয়দপুর উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক রুহুল আলম মাষ্টার। তিনি বলেন, পৌর কর্তৃপক্ষ এভাবে কিছু হরিজন পরিবারকে পানি বন্দি করে রাখতে পারে না। তারা দীর্ঘদিন ধরে মানববেতর জীবন যাপন করছে।
এছাড়া হরিজন পরিবারের সদস্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, এলএলবি পাশ করা নন্দলাল বাসফোঁর এবং বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী সবিতা রানী বাসফোঁর। তারা বলেন, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ পক্ষপাত্তিমূলক আচরণ এবং পয়ঃ ও বর্জ্য নিষ্কাশন বন্ধ রেখে কিছু হরিজন পরিবারকে পানিবন্দি করে রেখেছে। বাধ্য হয়ে আজকে রাস্তায় নেমে মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করতে হচ্ছে তাদের। সমস্যার সমাধান না হলে পরবর্তীতে তারা অনশনের মত কর্মসূচী পালন করবে বলে জানায়।
উল্লেখ্য, শহরের মুন্সিপাড়া হরিজন পল্লীর দীলিপ বাসফোর পরিবার তার ঘরের পাশ দিয়ে প্রবাহিত সরকারি নালা (ড্রেন) বন্ধ করে দেয়ায় দীর্ঘ প্রায় ৪ মাস যাবত পল্লীর কয়েকটি পরিবারের বাসার পানি নিষ্কাশন বাধাগ্রস্ত হয়ে ড্রেনের পানি উপচে রাস্তায় উঠে এসে চলাচলের চরম প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি হয়েছে। তার কিছুদিন থেকে বৃষ্টির ফলে ড্রেন ও রাস্তার পানি একাকার হয়ে স্থায়ী জলাবদ্ধতায় রূপ নিয়েছে। এমতাবস্থায় সম্প্রতি দীলিপ বাসফোর গংরা তাদের বাসার সামনে রাস্তার উপর ইট-বালু-সিমেন্টের ঢালাই দিয়ে উচু করায় রাস্তা ও ড্রেনের পানি ভুক্তভোগী পরিবারগুলোর ঘরে, আঙ্গিনায় ও উঠানে ঢুকে দুর্বিষহ পরিস্থিতি বিরাজ করছে। ফলে ওই পরিবারগুলোর লোকজন চরম মানবেতর জীবন যাপন করছে।
এ ব্যাপারে পৌর কর্তৃপক্ষসহ উপজেলা প্রশাসনকে লিখিতভাবে জানিয়েও কোন প্রতিকার পায়নি তারা।৷

এনপি৭১


© All rights reserved © 2020-21 npnews71.com
Developed BY Akm Sumon Miah