শনিবার, ৩১ Jul ২০২১, ০৭:১৩ অপরাহ্ন

সৈয়দপুরে ভূল চিকিৎসা দিয়ে গরু মেরে ফেলার অভিযোগ

সৈয়দপুরে ভূল চিকিৎসা দিয়ে গরু মেরে ফেলার অভিযোগ

শাহজাহান আলী মনন/ নীলফামারী ২১ জুন

নীলফামারীর সৈয়দপুর প্রাণী সম্পদ অফিসের উপসহকারী প্রাণী সম্পদক কর্মকর্তা আজিম উদ্দিনের বিরুদ্ধে ভুল চিকিৎসা দিয়ে গরু মেরে ফেলার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ২১ জুন রোববার এ সংক্রান্ত অভিযোগ করেছেন সৈয়দপুর উপজেলার খাতামধুপুর ইউনিয়নের ছইল পলিপাড়ার গবাদী পশুর মালিক মকবুল হোসেন শাহ।

তিনি জানান, প্রায় এক সপ্তাহ যাবত তার দুটি গরু নতুন উপসর্গে আক্রান্ত। পশুর সারা শরীর গোটা গোটা আকারে ফুলে গেছে এবং পায়ের কয়েক ফোলা স্থানে ক্ষত সৃষ্টি হয়ে ঘা হয়ে গেছে। গ্রাম্য পশু চিকিৎসকরা এ ব্যাপারে জানায় যে, এটি নতুন রোগ ল্যাম্পিং স্কিন। এর কোন চিকিৎসা তাদের কাছে নেই। প্রতি মঙ্গলবার বাড়ির কাছে হাজারীহাটে সরকারী পশু অফিস থেকে ডাক্তার আসেন। কিন্তু গত সপ্তাহে তিনি না আসায় বাধ্য হয়ে পরের দিন গত ১৭ জুন বুধবার সকালে ৮শ’ টাকা খরচ করে অটো ভাড়া নিয়ে আমাার মেয়েকে নিয়ে ২টি গরুসহ সৈয়দপুর শহরের কয়ানিজপাড়া উপজেলা প্রাণী সম্পদ অফিসে যাই। সেখানে গিয়ে দেখতে পাই অফিসের মূল ফটকের সামনে বসে আমাদের আগে আসা কয়েকটি গরু ও ছাগলের চিকিৎসা দিচ্ছেন এক ব্যক্তি। অফিসের ভিতরে প্রবেশ করে আমার মেয়ে শাহনাজ জানতে পারে যে বাইরে যে ব্যক্তি চিকিৎসা দিচ্ছেন তিনিই আমাদের গরু দেখবেন। এতে বাইরে এসে আমি ও মেয়ে ওই ব্যক্তিকে আমাদের সমস্যার কথা জানালে তিনি গরু না দেখেই বলেন, কিছুই করতে হবে না। শুধু সোডা দিয়ে ক্ষতস্থান ধুয়ে দিবেন আর সেবা করবেন। পশু ভালো হয়ে যাবে। এসময় আমার মেয়ে ‘পভিসেভ’ দেয়া যাবে কি না তা জানতে চাইলে তিনি বলেন, দিয়ে দেখতে পারেন। এতে আমরা গরু নিয়ে বাড়ি ফিরে এসে সোডা দিয়ে ক্ষতস্থান ধুয়ে দিই। কিন্তু এর ফলে গরুর ওই ক্ষতস্থানগুলো থেকে মাংস খসে পড়তে থাকে। একটি গরুর চোখের কাছে ক্ষত থাকায় চোখটাই নষ্ট হয়ে গরুটা মরে যায়। এতে উপায়ন্তর না দেখে গত শনিবার (২০) আবার প্রাণী সম্পদ অফিসে গেলে ভেটেনারী সার্জন ডাঃ রফিকুল ইসলামের দেখা পেয়ে তাকে বিষয়টা খুলে বললে তিনি জানান, কি করেছেন ক্ষতস্থানে কেন সোডা দিয়েছেন। তাৎক্ষনিক তিনি প্রেসক্রিপশন করে দেন। তার দেয়া ওষুধ খাওয়ায়ে অন্য গুরুগুলো সুস্থ হয়েছে।

পরে জানতে পারি সোডা দিয়ে চিকিৎসা করার পরামর্শদাতা কোন চিকিৎসক নন। তিনি অফিসের উপ-সহকারী প্রাণী সম্পদ কর্মকর্র্তা। নাম মোঃ আজিম আদিল। কিন্তু তিনি তারপরও ভুল চিকিৎসা দিয়ে আমার গরুটা মেরে ফেলেছেন। যার মূল্য প্রায় ৭০ হাজার টাকা। তিনি চিকিৎসক না হয়েও কেন গরু না দেখেই এভাবে ভুল পরামর্শ দিয়ে আমার ক্ষতি করলেন। তিনি তো বলতে পারতেন যে আমি চিকিৎসক নই। ডাক্তার এখন নাই, অপেক্ষা করেন ডাক্তার দেখিয়ে চিকিৎসা নিতাম। তার ভুল চিকিৎসায় এভাবে আরও অনেকের ক্ষতি হচ্ছে কিন্তু তিনি স্থানীয় লোক হওয়ায় তার বিরুদ্ধে কেউ কোন অভিযোগ করেন না।

মকবুল হোসেন শাহ’র মেয়ে শাহনাজ জানান, আমার বাসা প্রানী সম্পদ অফিসের সাথেই। কিন্তু তারপরও আজিম আদিল আমার এমন ক্ষতি করলেন। তিনি অবশ্য সোডা দিয়ে ক্ষতস্থান ধোয়ার পরামর্শ দেয়ার সময় বলেছিলেন। পরে যোগাযোগ করতে যাতে তিনি প্রাইভেটভাবে গিয়ে আমাদের গরুর চিকিৎসা করবেন। এতে তার বাড়তি কিছু আয় হতো। এভাবেই তিনি হয়তো ভুল পরামর্শ দিয়ে পশুর অবস্থা গুরুত্বর করে অনেককেই ক্ষতিগ্রস্থ করেছেন। তা না হলে তিনি পরিচিত হয়েও কি করে এমন করতে পারলেন।

এ ব্যাপারে আজিম আদিলের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, আমি কোন ভুল পরামর্শ দেইনি। ল্যাম্পিং স্কিন ডিজিজে প্রাথমিকভাবে ২ চামচ খাওয়ার সোডা ২ লিটার পানিতে মিশিয়ে আক্রান্ত পশুসহ অন্য পশুদের সারা শরীর মুছিয়ে দিলে জীবানুমুক্ত হবে। তাছাড়া এ রোগের কোন চিকিৎসা নেই। জিটিপি নামে একটি ভ্যাকসিন আছে, কিন্তু তা এখন বাজারজাত করা হয়না। তাই ক্ষতস্থানগুলোতে তারপিন তেল দিলে মাছি বসে ঘা করতে পারেনা। সেটাই বলেছি মাত্র। তারপরও যদি তার মনে হয় ভুল চিকিৎসা দিয়েছি, তাহলে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে অভিযোগ দেন তারা বিভাগীয়ভাবে যে শাস্তি দিবে আমি তা মাথা পেতে নিবো।
ভ্যটেনারী সার্জন ডাঃ রফিকুল ইসলাম বলেন, অভিযোগ দিলে বিষয়টি খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেয়া হবে।


© All rights reserved © 2020-21 npnews71.com
Developed BY Akm Sumon Miah