মঙ্গলবার, ২৭ Jul ২০২১, ০৫:০১ অপরাহ্ন

হামার হাত চললে পেট চলে

এনপিনিউজ৭১/নিজেস্ব প্রতিবেদক/ ১৮ এপ্রিল রংপর
রংপুরে করোনার প্রভাবে কর্মহীন হয়ে পড়া ক্ষেতমজুর, দিনমজুরসহ সহায় সম্বলহীন নিম্নআয়ের মানুষেরা সরকারি ত্রাণ সহায়তার দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল ও সড়ক অবরাধে করেছেন। শনিবার (১৮ এপ্রিল) সকালে রংপুর নগরীর মাহিগঞ্জ সরেয়ারতল এলাকায় বিক্ষোভ করেন তারা। এসময় রংপুর- গাইবান্ধার-সুন্দরগঞ্জ সড়ক অবরোধ করে ত্রাণের দাবিতে স্লোগান দেন শত শত নারী-পুরুষ।


ত্রাণ সহায়তা বঞ্চিত বিক্ষুদ্ধ মানুষের সড়ক দখলে প্রায় দুই ঘন্টা যান চলাচল বন্ধ ছিলো। খবর পেয়ে পুলিশ ও জেলা প্রশাসনের লোকজন ঘটনাস্থলে এসে খাদ্য সহায়তা প্রদানের আশ্বাস দিলে অবরোধ তুলে নেয় বিক্ষোভকারীরা।

এদিকে বিক্ষুদ্ধদের অভিযোগ, নগরীর ৩৩নং ওয়ার্ডে প্রায় এক মাস ধরে কর্মহীন মানুষেরা মানবেতর জীবনযাপন করছে। করোনার প্রভাবে কোন কাজ না করতে পারায় পরিবার পরিজন নিয়ে খেয়ে না খেয়ে দিন কাটছে তাদের। মেয়র কাউন্সিলর ত্রাণ বিতরণ করলেও তাদের কেউ খাদ্য সহায়তা পায়নি।


নাম না প্রকাশের শর্তে এক দিনমজুর বলেন, ‘হামাক ঘরের থাকইপ্যার কওয়া হওচে, যাতে করোনাত মরি না যায়। এ্যলা যে ঘরোত থাকি না খ্যায়া মরি যাওছি। কারো তো খোঁজখবর নেয় না। হামরা গরিব মানুষ। হামার হাত চললে, পেট চলে। কাম করি ত্রাণের আশাত থাকলে তো মরি যামো।

ফজলু মিয়া নামে এক রিকশা চালক বলেন, ‘সরকার ভালো কিন্তুক ত্রাণ দেয়ার সিস্টেম ভালো না। ঘরোত থাকলে বোলে খাবার দিয়্যা যাইবে। মুই তো বাইরোত ব্যারোয়াও খাবার পাওছো না। ইসক্যা ধরি ব্যরাইলে পথে পথে জেরা করে। ঠিক মতো চালবার না দিলে হামার সংসার চলবে ক্যামন করি।

ত্রাণ বঞ্চিত এসব অনাহারী-অর্ধাহারী মানুষদের অভিযোগ, সিটির ৩৩নং ওয়ার্ডে কয়েক হাজার হতদরিদ্র ও কর্মহীন মানুষের বসবাস। কিন্তু সরকারিভাবে মাত্র ৫০০-৬০০ প্যাকেট বিতরণ করা হয়েছে। বাকিদের জন্য কোন ব্যবস্থা করা হয় নি। এমনকি ওই এলাকাতে টিসিবির খাদ্যপণ্য ঠিক মতো বিক্রিও করা হয় না। একারণে দিন দিন তাদের কষ্ট বাড়ছে। তারা দ্রুত টিসিবির খাদ্যপণ্য বিক্রির কার্যক্রম শুরু সহ ত্রাণ ও কাজের ব্যবস্থা করে দেয়ার দাবি জানান।

এদিকে মেট্রোপলিটন পুলিশের মাহিগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আখতারুজ্জামানসহ জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে এসে বিক্ষোভকারীদের সাথে কথা বলেন। তাদেরক দ্রুত সময়ের মধ্যে ত্রাণ সহায়তা দেয়াসহ টিসিবির খাদ্যপণ্য ক্রয় সুবিধার আওতায় আনার ব্যাপারে আশ্বাস দেয়া হয়। এব্যাপারে জানতে রংপুর সিটি করপোরেশনের ৩৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর সিরাজুল ইসলাম সিরাজের মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করে তাকে পাওয়া যায়নি।

এনপি/মেহি


© All rights reserved © 2020-21 npnews71.com
Developed BY Akm Sumon Miah