সোমবার, ১৫ Jul ২০২৪, ০৯:২৫ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
এবারও রংপুরে সর্বোচ্চ করদাতা হলো দুইভাই তৌহিদ-তানবীর জাতীয় পার্টির কো-চেয়ারম্যান মোস্তফার সাথে মহানগর জাতীয় হকার্স শ্রমিক পার্টির সৌজন্য স্বাক্ষাত জাতীয় পার্টির কো-চেয়ারম্যান মোস্তফার সাথে সদর উপজেলা জাতীয় পার্টির সৌজন্য স্বাক্ষাত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মিঠাপুকুর (রংপুর-৫) আসনে জাপার প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন সংগ্রহ করেছেন আনিছুর রহমান আনিস রংপুর রিপোর্টার্স ক্লাবের সভাপতি রাজু সাধারণ সম্পাদক মাজহার নির্বাচিত অসত্য সংবাদ অপসারণের দাবি জাতীয় পার্টির শারর্দীয় দূর্গা পূজা উপলক্ষে রংপুর সিটি কর্পোরেশনে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত রংপুরে অস্ত্র ও মাদকসহ মেরিল সুমন, ব্ল্যাক রুবেলসহ পাঁচ শীর্ষ সন্ত্রাসী গ্রেফতার। প্রধানমন্ত্রী তনয়া সায়মা ওয়াজেদের ভিজিটিং কার্ড চেয়ে নিয়েছেন মার্কিট প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন: পররাষ্ট্র মন্ত্রী। লালমনিরহাটে এক সাথে তিন সন্তানের জন্ম দিয়েছেন এক গৃহবধূ।
দুইভাইকে বেঁধে নির্যাতনের সময় ফিরে এলো হারিয়ে যাওয়া ছাগল

দুইভাইকে বেঁধে নির্যাতনের সময় ফিরে এলো হারিয়ে যাওয়া ছাগল

নিউজ ডেক্সঃ
নড়াইলের লোহাগড়ায় ছাগল চুরির অপবাদে দুই ভাইকে মারধরের অভিযোগ উঠেছে। তারা সম্পর্কে চাচাতো ভাই। এক ভাইয়ের হাতে দড়ি এবং আরেক ভাইয়ের হাতে গামছা বেঁধে বেধড়ক মারধরের একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, রোববার (১৫ মে) সকালে লোহাগড়া উপজেলার কোটাকোল ইউনিয়নের মাটিয়াডাঙ্গা গ্রামে এ নির্যাতনের ঘটনা ঘটে। পরে ছাগল ফিরে আসার খবরে বন্ধ হয় নির্যাতন।
নির্যাতিত দুই ভাই হলেন- ওই গ্রামের রশিদ শেখের ছেলে ফরিদ শেখ (৩০) ও একই গ্রামের রউফ শেখের ছেলে তরিক শেখ (২৩)। তারা সম্পর্কে চাচাতো ভাই। বর্তমানে তারা লোহাগড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

ভাইরাল হওয়া ভিডিওতে দেখা যায়, স্থানীয় একটি দোকানের সামনে ছাগল চুরির অপবাদে লুঙ্গি ও নীল গেঞ্জি পরিহিত এক ব্যক্তি খালি গায়ে থাকা একজনকে হাতে দড়ি বাঁধা অবস্থায় লাঠি দিয়ে মারতে থাকেন। এ সময় আরও কয়েকজনকে মারধরে সহযোগিতা করতে দেখা গেছে।
এদিকে এর পাশে কমলা গেঞ্জি পরিহিত আরেকজনকে হাতে গামছা বেঁধে একজন ধরে রেখেছেন। নীল গেঞ্জি পরিহিত ওই ব্যক্তি তাকেও মারতে থাকেন। পরে আরও কয়েকজন যোগ দেন।

মারধরের সময় দুজনই ছাগল চুরির বিষয়ে জানেন না বলে জানান এবং মারধর না করতে আকুতি জানা। এরপরও মারতে থাকেন। একই সঙ্গে পাশ থেকে কয়েকজন আর গাঁজা সেবন করবে কিনা জিজ্ঞেস করেন। প্রতি উত্তরে দুজনই গাঁজা সেবন করবেন না বলে জানান।
এ বিষয়ে প্রত্যক্ষদর্শী ও মারধরের শিকার দুই ভাই জানান, শনিবার (১৪ মে) রাতে মাটিয়াডাঙ্গা গ্রামের হাই মুন্সির একটি ছাগল হারিয়ে যায়। ওই ছাগল চুরির অভিযোগে ফরিদ ও তরিককে রোববার (১৫ মে) সকাল ৮টার দিকে বাড়ি থেকে ধরে আনা হয়। পরে নান্নু শেখের দোকানের পাশে একজনকে দড়ি দিয়ে আরেকজনকে গামছা দিয়ে বাঁধেন। এ সময় নান্নু শেখ, আজমল মুন্সি, ইজাজুল মুন্সি ও রমজান মুন্সিসহ চার-পাঁচজন দুজনকে লাঠি দিয়ে বেধড়ক পেটান। এছাড়া শরীরের বিভিন্ন জায়গায় বিড়ির ছ্যাঁকও দেওয়া হয়। ঘটনাস্থলে কোটাকোল ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য আবু কালাম মুন্সিও উপস্থিত ছিলেন।

প্রায় ঘণ্টা দুয়েক ধরে চলা ওই নির্যাতনের মধ্যে নান্নু মুন্সির বাড়ি থেকে খবর আসে ছাগল বাড়ি ফিরে এসেছে। তখন ফরিদ ও তরিককে ছেড়ে দিয়ে লোহাগড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করা হয়।

জানতে চাইলে কোটাকোল ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য আবু কালাম মুন্সি মারধরের বিষয় স্বীকার করে বলেন, ‘আমি ঘটনাস্থলে ছিলাম। তবে আমি তাদের মারিনি। সন্দেহ থেকে তাদের মারা হয়েছে।’

লোহাগড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ আবু হেনা মিলন বলেন, আইন কেউ নিজের হাতে তুলে নিতে পারে না। দুজনের শরীরে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। অভিযোগ পেলে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2023
Developed BY Rafi IT